কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

কিডনি নষ্ট হওয়া এড়ানো যায়, সময়মতো চিকিৎসা, কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে (kidney roger lokkhon protikar) সচেতনতার মাধ্যমে

আসসালামু আলাইকুম, কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। আমরা সবাই জানি যে প্রত্যেক মানুষের শরীরে দুটি কিডনি থাকে, যেগুলো মূলত রক্ত ​​থেকে ইউরিয়া, ক্রিয়েটিনিন, অ্যাসিড ইত্যাদি নাইট্রোজেনাস বর্জ্য ফিল্টার করে থাকে।
কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার
কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

লক্ষাধিক মানুষ বিভিন্ন ধরনের কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে বসবাস করছেন এবং তাদের অধিকাংশই এটি সম্পর্কে অবগত নন। এই কারণেই কিডনি রোগকে প্রায়ই 'নীরব ঘাতক' হিসাবে উল্লেখ করা হয় কারণ বেশিরভাগ লোক এই রোগটি গুরুতর রূপ না নেওয়া পর্যন্ত নির্ণয় করতে পারে না। যদিও লোকেরা তাদের রক্তচাপ, রক্তে শর্করার এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়মিত পরীক্ষা করে, তাদের কিডনিতে কোনও সমস্যা সনাক্ত করতে তাদের রক্তে একটি সাধারণ ক্রিয়েটিনিন পরীক্ষাও করা হয় না। 

আজকের পোস্টে আপনাদের সাথে কিডনি রোগের লক্ষণ ও তার প্রতিকার, কিডনি রোগ প্রতিকার করার উপায় এবং কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা (kidney roger lokkhon protikar) নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করাবো।

কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার, ঘরোয় চিকিৎসা

কিডনি ডিজঅর্ডারের অনেক সতর্কীকরণ লক্ষণ রয়েছে, তবে বেশিরভাগ সময়ই তারা উপেক্ষা করে বা অন্য কোনো ধরনের সমস্যার কথা ভেবে বিভ্রান্ত হয়। অতএব, একজনকে খুব সতর্ক থাকতে হবে এবং কিডনি ব্যাধির কোনো উপসর্গ দেখা দিলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিশ্চিতকরণ পরীক্ষা (রক্ত, প্রস্রাব এবং ইমেজিং সহ) করানো উচিত। কিন্তু আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, স্থূলতা, মেটাবলিক সিনড্রোম, বা করোনারি ধমনী রোগের পারিবারিক ইতিহাস, এবং/অথবা কিডনি নষ্ট হয়ে থাকে, অথবা আপনার বয়স 60 বছরের বেশি হয়, তাহলে আজকের যুগে আপনার নিয়মিত কিডনি পরীক্ষা করা উচিত।


আপনার যদি সন্দেহ থাকে যে, আপনার কিডনিতে কোন সমস্যা আছে তবে আপনি অল্প খরছে যেকোন ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে সিরাম ক্রিয়েটিনিন টেস্ট করাতে পারেন। স্বাভাবিক অবস্থায় একজন প্রাপ্ত বয়ষ্ক ব্যক্তির রক্তে 0.6 থেকে 1.25 mg/dL, প্রাপ্ত বয়ষ্ক মহিলার রক্তে 0.52 থেকে 1.04 mg/dL এবং শিশুদের রক্তে 0.23 থেকে 0.74 mg/dL ক্রিয়েটিনিন থাকে। স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে কম বা বেশি থাকলে বুঝে নিতে হবে কিডনিতে গন্ডগোল আছে।

কিডনি রোগের লক্ষণ

যদিও কিডনি রোগ নির্ণয়ের একমাত্র নিশ্চিত উপায় হল পরীক্ষা করা, এখানে কিডনি রোগের কিছু প্রাথমিক সতর্কতা লক্ষণ রয়েছেঃ
  • গোড়ালি, পায়ের বা গোড়ালির কাছে ফোলাভাব দেখা দেওয়া প্রথম লক্ষণগুলির মধ্যে একটি। কিডনি বিকল হতে শুরু করলে, শরীরে লবণ জমা হয়, যার ফলে আপনার বাছুর এবং গোড়ালি ফুলে যায়।
  • চোখের চারপাশে ফোলাভাব যা কোষ বা টিস্যুতে তরল জমা হওয়ার কারণে ঘটে। এটি কিডনি রোগের প্রাথমিক লক্ষণগুলির মধ্যে একটি। এটি বিশেষ করে এমন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে হয় যাদের কিডনির মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন যুক্ত হয়।
  • দুর্বলতা: কিডনি রোগের একটি সাধারণ লক্ষণ হল শুরুতে ক্লান্তি। কিডনি বিকল হওয়ার সাথে সাথে এই লক্ষণটি আরও প্রকট হয়ে ওঠে। ব্যক্তিটি স্বাভাবিক দিনের তুলনায় বেশি ক্লান্ত এবং অনেক কাজ করতে অক্ষম বোধ করতে পারে এবং ঘন ঘন বিশ্রামের প্রয়োজন হতে পারে। এটি মূলত রক্তে টক্সিন এবং অমেধ্য জমা হওয়ার কারণে, ফলে কিডনি বিকল হয়। একটি অনির্দিষ্ট লক্ষণ হওয়ার কারণে, এটি প্রায়শই বেশিরভাগ লোকেরা উপেক্ষা করে।
  • ক্ষুধা হ্রাস: ইউরিয়া, ক্রিয়েটিনিন, অ্যাসিডের মতো টক্সিন জমা হওয়ার কারণে, ব্যক্তি তার ক্ষুধা হারাতে শুরু করে। উপরন্তু, কিডনি রোগের অগ্রগতির সাথে সাথে রোগীর রুচির পরিবর্তন হয়, যা প্রায়ই রোগীদের দ্বারা ধাতব হিসাবে বর্ণনা করা হয়। যদি কেউ দিনের বেলা কিছু না খেয়েও তৃপ্ত বোধ করে, তবে মনের মধ্যে বিপদের ঘণ্টা বেজে উঠবে এবং তার কিডনি পরীক্ষা করা উচিত।
  • সকালের বমি বমি ভাব এবং বমি: কিডনি নষ্ট হলে প্রাথমিক লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল ভোরে বমি বমি ভাব এবং বমি হওয়া। কিডনি রোগ হলে শেষ পর্যায়ে, রোগীর ঘন ঘন বমি হয় এবং ক্ষুধা কমে যায়।
  • অ্যানিমিয়া: হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমতে শুরু করে এবং শরীর থেকে রক্ত ​​ক্ষয় ছাড়াই ব্যক্তি ফ্যাকাশে দেখা দিতে পারে। এটি কিডনি রোগের একটি সাধারণ জটিলতা। এটি দুর্বলতা এবং ক্লান্তির কারণ হতে পারে। এই রক্তাল্পতা অনেক কারণে হতে পারে যার মধ্যে এরিথ্রোপয়েটিনের নিম্ন স্তরের (কিডনিতে এরিথ্রোপয়েটিন সংশ্লেষিত হচ্ছে), আয়রনের মাত্রা কম, বিষ জমার কারণে অস্থি মজ্জার দমন ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত।
  • প্রস্রাবের বেগ পরিবর্তন: একজনকে তাদের প্রস্রাবের আউটপুটের উপর খুব সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, রোগীর প্রস্রাব কমে যেতে পারে বা বেশি ঘন ঘন প্রস্রাব করার প্রয়োজন অনুভব করতে পারে, বিশেষ করে রাতে। এটি একটি সতর্কতা চিহ্ন হতে পারে এবং এটি নির্দেশ করতে পারে যে, কিডনির ফিল্টারিং ইউনিটগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। কখনও কখনও এটি কিছু মূত্রনালীর সংক্রমণ বা পুরুষদের একটি বর্ধিত প্রস্টেটের লক্ষণও হতে পারে। প্রোস্টেড বড় হওয়ার লক্ষন, কারন ও ঘরোয়া চিকিৎসা। এইভাবে, প্রস্রাবের আউটপুটে পরিবর্তন (বৃদ্ধি বা হ্রাস) আপনার নেফ্রোলজিস্টকে বা কিডনি রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে অবিলম্বে রিপোর্ট করা উচিত।
  • প্রস্রাবে ফেনা বা রক্ত: প্রস্রাবে অতিরিক্ত ফেনা প্রস্রাবে প্রোটিনের উপস্থিতি নির্দেশ করে (যা স্বাভাবিক অবস্থায় নগণ্য হওয়া উচিত)। যখন কিডনির ফিল্টারিং সিস্টেম ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখন প্রোটিন এবং রক্তকণিকা প্রস্রাব থেকে বেরিয়ে যেতে পারে। কিডনি রোগ নির্দেশ করার পাশাপাশি, প্রস্রাবে রক্ত ​​​​টিউমার, কিডনিতে পাথর বা যেকোনো ধরনের সংক্রমণ নির্দেশ করতে পারে। এছাড়াও, জ্বর বা সর্দির সাথে প্রস্রাবে পুঁজ গুরুতর হতে পারে এবং আবার এটি একটি গুরুতর মূত্রনালীর সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে। এইভাবে প্রস্রাবের রঙ, সামঞ্জস্য বা প্রকৃতিতে যে কোনও পরিবর্তন হলে তাড়াতাড়ি নেফ্রোলজিস্টকে বা ইউরোলজিস্টকে জানাতে হবে।
  • শুষ্ক এবং চুলকানি ত্বক: শুষ্ক এবং চুলকানি ত্বক কিডনি রোগের লক্ষণ হতে পারে। কিডনি রোগ হলে বা কিডনির কার্যকারিতা হ্রাস পাওয়ার সাথে সাথে শরীরে টক্সিন তৈরি হয়, ত্বকে চুলকানি, শুষ্কতা এবং দুর্গন্ধ সৃষ্টি করে।
  • পিঠে ব্যথা বা তলপেটে ব্যথাঃ পিঠে, পাশে বা পাঁজরের নিচে ব্যথা কিডনি রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে যেমন কিডনিতে পাথর বা পাইলোনেফ্রাইটিস। একইভাবে, তলপেটে ব্যথা মূত্রাশয় সংক্রমণ বা মূত্রনালীতে পাথর (যে টিউব কিডনি এবং মূত্রাশয়কে সংযুক্ত করে) এর সাথে যুক্ত হতে পারে। এই ধরনের উপসর্গ উপেক্ষা করা উচিত নয় এবং এক্স-রে KUB বা আল্ট্রাসাউন্ড পেটের মতো রুটিন ইমেজিং অধ্যয়ন দ্বারা আরও তদন্ত করা উচিত।
  • উচ্চ রক্তচাপঃ কিডনি রোগের একটি উপসর্গ উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে। কিডনির কার্যকারিতা খারাপ হওয়ার সাথে সাথে শরীরে সোডিয়াম এবং জল জমে উচ্চ রক্তচাপের দিকে পরিচালিত করে। উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে মাথাব্যথা, পেটে ব্যথা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং সম্ভবত কিডনি রোগের প্রাথমিক লক্ষণ।
কিডনি রোগ বা কিডনি নষ্ট হওয়া এড়ানো যায়, সময়মতো চিকিৎসা এবং কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে সচেতনতার মাধ্যমে। অন্যথায় রোগীকে ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হতে পারে এবং চিকিৎসা না করা হলে মৃত্যুও হতে পারে।

কিডনি রোগের প্রতিকার ও ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি রোগ প্রতিরোধের অনেক উপায় রয়েছে। আপনার কিডনির স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়ার কিছু উপায় নিচে দেওয়া হলঃ

১। প্রচুর পানি পান করুনঃ

প্রচুর পানি পান করা, আপনার কিডনি সুস্থ রাখার সবচেয়ে সাধারণ এবং সহজ উপায়। প্রচুর পানি খাওয়া, বিশেষ করে উষ্ণ পানি, কিডনিকে শরীর থেকে সোডিয়াম, ইউরিয়া এবং টক্সিন পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

২। কম সোডিয়াম / লবণ খাদ্যঃ

আপনার খাদ্যতালিকায় সোডিয়াম বা লবণের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখুন। এর মানে হল যে আপনাকে প্যাকেটজাত/রেস্তোরাঁর খাবারও এড়িয়ে চলতে হবে। এছাড়াও, আপনার খাবারে অতিরিক্ত লবণ যোগ করবেন না। একটি কম লবণযুক্ত খাদ্য কিডনির উপর বোঝা কমায় এবং উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ রক্তচাপজনিত ব্যাধিগুলির বিকাশকে বাধা দেয় এবং কিডনি রোগের অগ্রগতিও রোধ করে।

৩। শরীরের সঠিক ওজন বজায় রাখুনঃ

স্বাস্থ্যকর খাবার খান এবং আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন। আপনার কিডনির ধমনীতে কোলেস্টেরল জমা হওয়া রোধ করতে আপনার শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়মিত পরীক্ষা করুন। এছাড়াও, স্যাচুরেটেড ফ্যাট/চর্বিযুক্ত ভাজা খাবারগুলিকে ডায়েট থেকে দূরে রাখুন এবং প্রতিদিন প্রচুর ফল এবং শাকসবজি খাওয়ার উপর জোর দিন। একজন ব্যক্তির ওজন বৃদ্ধি কিডনির উপর লোড বাড়ায়।

৪। রক্তে শর্করার মাত্রা নিচে রাখুনঃ

ডায়াবেটিক রোগীদের কিডনি রোগ খুবই সাধারণ এবং প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পড়লে তা প্রতিরোধ করা যায়। তাই, আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়মিত পরীক্ষা করার পরামর্শ দেওয়া হয়, চিনিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।

৫। নিয়মিত রক্তচাপ নিরীক্ষণ করুন এবং নিয়ন্ত্রণে রাখুনঃ

আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপ থাকে তবে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টিহাইপারটেনসিভ গ্রহণ করুন এবং স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখুন এবং প্রয়োজনীয় খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করুন। সাধারণ রক্তচাপের মাত্রা <120/80। উচ্চ রক্তচাপ কিডনি রোগ ছাড়াও স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

৬। ধূমপান ত্যাগ করুনঃ

ধূমপান কিডনি রোগের অগ্রগতির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে একটি। এমনকি ১টি সিগারেট ধূমপান ইতিমধ্যে দুর্বল কিডনির আরও ক্ষতি করতে পারে। ধূমপানও ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং সিএডির জন্য একটি ঝুঁকির কারণ। তাই একজনকে অবিলম্বে ধূমপান বন্ধ করা উচিত, যা শুধু কিডনির জন্যই নয়, শরীরের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ।

৭। কিডনি রোগ প্রতিরোধ করতে ব্যায়াম করুন

যদি প্রতিদিন না হয়, তবে সপ্তাহে ৭ দিনের মধ্যে অন্তত ৫ দিন প্রতিদিন প্রায় ৪৫ মিনিট জগিং, সাইক্লিং, সাঁতার, র‌্যাকেট গেমের মতো খেলাধুলা করুন এবং এইভাবে হালকা ব্যায়াম করে একটি স্বাস্থ্যকর স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখুন। ব্যায়াম আপনাকে ডিপ্রেশন থেকে মুক্তি দেবে। আপনার বসে থাকা জীবনধারা পরিবর্তন করুন, অফিসে হাঁটাহাঁটি করুন বা দুপুরের খাবারের পর হাঁটাহাঁটি করুন বা সকাল-সন্ধ্যা ব্যায়াম করুন।

৮। কিডনি সংক্রামন এড়িয়ে চলাঃ

একটি কিডনি সংক্রমণ ঘটে যখন ব্যাকটেরিয়া আপনার এক বা উভয় কিডনিতে প্রবেশ করে এবং সংক্রামিত হয়। ব্যাকটেরিয়া মূত্রনালীর অগ্রভাগ থেকে আপনার মূত্রনালীতে প্রবেশ করে, প্রথমে আপনার মূত্রাশয় এবং তারপর আপনার কিডনিকে সংক্রমিত করে। এজন্য টয়লেট পেপার দিয়ে মলদ্বার পরিষ্কার করার সময় নিচ থেকে উপরে আনবেন না। অর্থাৎ যৌনাঙ্গের সংস্পর্শে আনাবেন না। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে মূত্রতলী পরিস্কার করে নিবেন।

রাতে কমপক্ষে ৮ ঘন্টা বিশ্রামের ঘুম পেয়ে আপনার জীবনধারাকে সঠিকভাবে ভারসাম্য বজায় রাখুন। সুস্থ থাকতে হলে রাতে ভালো ঘুম হওয়া প্রয়োজন।

কিডনি রোগের চিকিৎসা

কিডনি রোগের জন্য বেশ কয়েকটি চিকিৎসার বিকল্প রয়েছে। আপনার কি ধরনের চিকিৎসা প্রয়োজন তা নির্ভর করবে আপনার কিডনি ফেইলিউরের কারণের পাশাপাশি স্টেজের উপর।

ডায়ালাইসিস

ডায়ালাইসিস ফিল্টার করে এবং একটি মেশিন ব্যবহার করে রক্ত পরিশোধন করে। যন্ত্রটি কিডনির কার্য সম্পাদন করে। ডায়ালাইসিসের প্রকারের উপর নির্ভর করে। আপনি একটি বড় মেশিন বা একটি বহনযোগ্য ক্যাথেটার ব্যাগের সাথে সংযুক্ত থাকতে পারেন।

ডায়ালাইসিসের পাশাপাশি, আপনাকে কম পটাসিয়াম, কম লবণযুক্ত ডায়েট অনুসরণ করতে হতে পারে।

ডায়ালাইসিস কিডনি রোগ নিরাময় করে না, তবে আপনি যদি নিয়মিত নির্ধারিত চিকিৎসার জন্য যান তবে এটি আপনার জীবনকে বাড়িয়ে দিতে পারে।

কিডনি প্রতিস্থাপন

আরেকটি চিকিৎসা বিকল্প একটি কিডনি প্রতিস্থাপন। একটি প্রতিস্থাপিত কিডনি পুরোপুরি কাজ করতে পারে, তাই আপনার আর ডায়ালাইসিসের প্রয়োজন নেই।

আপনার শরীরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি দাতা কিডনি পাওয়ার জন্য সাধারণত দীর্ঘ অপেক্ষা করতে হয়। আপনার যদি জীবিত দাতা থাকে তবে প্রক্রিয়াটি আরও দ্রুত যেতে পারে।

ট্রান্সপ্লান্ট সার্জারি সবার জন্য সঠিক চিকিৎসার বিকল্প নাও হতে পারে। অস্ত্রোপচারের ব্যর্থতাও সম্ভব।

আপনার শরীরকে নতুন কিডনি প্রত্যাখ্যান করা থেকে প্রতিরোধ করার জন্য অস্ত্রোপচারের পরে আপনাকে অবশ্যই ইমিউনোসপ্রেসেন্ট ওষুধ গ্রহণ করতে হবে। এই ওষুধগুলির নিজস্ব পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে, যার মধ্যে কিছু গুরুতর হতে পারে।

আপনি কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য একজন ভাল প্রার্থী কিনা সে সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

কিডনি রোগের হোমিও চিকিৎসা

কিডনি ডায়ালাইসিস এবং নতুন কিডনী লাগানোর মতো চিকিৎসায় লক্ষ লক্ষ খরচ করতে হয়, সেহেতু বেশিরভাগ রোগীই বলতে গেলে বিনা চিকিৎসায় মারা যায়। তাছাড়া দীঘায়ী কিডনী রোগিদের বেশির ভাগই ডায়াবেটিস এবং হার্টএটাকে মৃত্যুবরন করে। কারণ কিডনী রোগের সাথে হার্টএটাক এবং ডায়াবেটিস ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

কিডনি নষ্ট হওয়ার কারনে যারা ডায়ালাইসিস করে বেঁচে আচেন, তারাও ডায়ালাইসিসের পাশাপাশি হোমিও চিকৎসা গ্রহন করে তাদের নষ্ট হয়ে যাওয়া কিডনিকে ধীরে ধীরে সচল করতে পারেন। হোমিও চিকিৎসায় কিডনির ধ্বংস হওয়া কোষের জায়গায় ভালো টিস্যু গজাতে দেখা যায়। 

কিডনি রোগের হোমিও চিকিৎসা নিতে গেলে অবশ্যই আপনাকে একজন রেজিস্টার হোমিও চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। হোমিও ঔষধ লক্ষনের উপর ভিত্তি করে দেওয়া হয়। সেহেতু হোমিও ডাক্তার আপনার রোগের সকল লক্ষন, অতীত সবকিছু শুনে আপনাকে ঔষধ দিবে। নিচে কিছু হোমিও ঔষদের নাম দেওয়া হলো -
  • এপিস মেলিফিকা।
  • আর্সেনিকাম।
  • অরাম মুরিয়াটিকাম।
  • বেলাডোনা।
  • ক‍্যান্থারিস।
  • কোনাভ্যালারিয়া

আমরা সবসময় আপনাদের সুস্থতা কামনা করি। আপনি নিশ্চই কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার পোস্টটি পড়ে জানতে পরেছেন কিডনি রোগের লক্ষণ ও তার প্রতিকার সম্পর্কে।
নাম

অনলাইন থেকে আয়,1,আন্তর্জাতিক,14,ইসলামিক,8,ইসলামিক নাম,6,ঈদ,1,খেলাধুলা,2,গুগল এডসেন্স,1,ঘরোয়া উপায়,7,চাকরির ফিডস,3,জিওগ্রাফি,19,টিপস,8,টেলিকম,4,নামের অর্থ,5,পাসপোর্ট,3,পিকচার,8,প্রযুক্তি,4,ফলের উপকারিতা,9,ফেসবুক,1,ব্যবসা,1,ব্লগিং,1,ভালোবাসা,3,মহিলা স্বাস্থ্য,3,মেহেদি ডিজাইন,1,রিলেশনশিপ,5,রেজাল্ট,4,লাইফস্টাইল,9,শিক্ষা,42,সাধারণ জ্ঞান,19,সিম অফার,4,সোস্যাল মিডিয়া,1,স্বাস্থ্যের ফিডস,27,
ltr
item
AjkerFeeds - প্রযুক্তি, শিক্ষা, নামের অর্থ, স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য: কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার
কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার
কিডনি নষ্ট হওয়া এড়ানো যায়, সময়মতো চিকিৎসা, কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে (kidney roger lokkhon protikar) সচেতনতার মাধ্যমে
https://blogger.googleusercontent.com/img/b/R29vZ2xl/AVvXsEjQNTksGI-22R5rNom763PJsqIWxtuwu27cJsiCIH6vDdCq1fGKCAZxgih83pES_D67WWoJzXwx3Nvcgzb6t-7PEEDHbqBKxb0eKTY9q7DN3DQWrUowPEADPg-_szODijNvQ6VNN5T8470OdiLKTQiKrB8Qeu8g5JvoxGqXoCM3C962ypYDVP6U0M8l/w640-h389/kidney%20roger%20lokkhon%20protikar.jpg
https://blogger.googleusercontent.com/img/b/R29vZ2xl/AVvXsEjQNTksGI-22R5rNom763PJsqIWxtuwu27cJsiCIH6vDdCq1fGKCAZxgih83pES_D67WWoJzXwx3Nvcgzb6t-7PEEDHbqBKxb0eKTY9q7DN3DQWrUowPEADPg-_szODijNvQ6VNN5T8470OdiLKTQiKrB8Qeu8g5JvoxGqXoCM3C962ypYDVP6U0M8l/s72-w640-c-h389/kidney%20roger%20lokkhon%20protikar.jpg
AjkerFeeds - প্রযুক্তি, শিক্ষা, নামের অর্থ, স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য
https://www.ajkerfeeds.com/2022/12/kidney-roger-lokkhon-protikar.html
https://www.ajkerfeeds.com/
https://www.ajkerfeeds.com/
https://www.ajkerfeeds.com/2022/12/kidney-roger-lokkhon-protikar.html
true
2583153642684648402
UTF-8
Loaded All Posts Not found any posts VIEW ALL Readmore Reply Cancel reply Delete By Home PAGES POSTS View All RECOMMENDED FOR YOU LABEL ARCHIVE SEARCH ALL POSTS Not found any post match with your request Back Home Sunday Monday Tuesday Wednesday Thursday Friday Saturday Sun Mon Tue Wed Thu Fri Sat January February March April May June July August September October November December Jan Feb Mar Apr May Jun Jul Aug Sep Oct Nov Dec just now 1 minute ago $$1$$ minutes ago 1 hour ago $$1$$ hours ago Yesterday $$1$$ days ago $$1$$ weeks ago more than 5 weeks ago Followers Follow THIS PREMIUM CONTENT IS LOCKED STEP 1: Share to a social network STEP 2: Click the link on your social network Copy All Code Select All Code All codes were copied to your clipboard Can not copy the codes / texts, please press [CTRL]+[C] (or CMD+C with Mac) to copy Table of Content