প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা

প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা
প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা
আসসালামু আলাইকুম, প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। Prostate enlargement । প্রোস্টেট বড় হওয়ার সমস্যা হল একটি সাধারণ অবস্থা যা পুরুষদের বার্ধক্যের সাথে দেখা দেয়। এটি প্রায় ৫০ বছর পর প্রতিটি পুরুষকে প্রভাবিত করতে পারে। এই সমস্যা প্রস্রাবের প্রবাহে বাধা এবং অন্যান্য মূত্রনালীর সমস্যা সৃষ্টি করে।

প্রোস্টেট হল একটি ছোট পেশী গ্রন্থি যা মূত্রনালীকে ঘিরে থাকে। এটি তরল তৈরি করে যেখানে শুক্রাণু ভেসে থাকে। প্রস্টেট বড় হওয়ার কারণে মূত্রনালী বন্ধ হয়ে যায় এবং নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়।

অনেক পুরুষ প্রস্টেট বৃদ্ধির লক্ষণ উপেক্ষা করে, এবং একটি গুরুতর সমস্যার শিকার হয়। কারণ এই সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসা সম্ভাব্য বিপজ্জনক জটিলতা এড়াতে সাহায্য করতে পারে। অতএব, প্রতিটি ব্যক্তির এই সমস্যাটি গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত এবং অবিলম্বে চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। আজকের পোস্টে প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। 

প্রোস্টেট বড় হওয়া কি?

প্রোস্টেট গ্রন্থি বৃদ্ধিকে বেনাইন প্রোস্ট্যাটিক হাইপারপ্লাসিয়া (BPH)ও বলা হয়। প্রোস্টেট গ্রন্থির কোষগুলো বড় হতে শুরু করলে বা সংখ্যাবৃদ্ধি করলে এই সমস্যা দেখা দেয়। এই অতিরিক্ত কোষগুলি প্রোস্টেট গ্রন্থিতে ফোলাভাব সৃষ্টি করে, যা মূত্রনালীকে সংকুচিত করে এবং প্রস্রাবের প্রবাহকে সীমিত করে। এটি বিভিন্ন ধরনের প্রস্রাবের উপসর্গ সৃষ্টি করে এবং জীবনযাত্রার মানকে প্রভাবিত করতে পারে। প্রোস্টেট বা BPH এর বৃদ্ধি প্রধানত ৫০ বছরের বেশি বয়সী পুরুষদের মধ্যে একটি খুব সাধারণ সমস্যা। প্রোস্টেট বড় হওয়া এক ধরনের ক্যান্সার নয় বা এটি প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় না।

প্রোস্টেট বড় হওয়া প্রস্রাবের প্রবাহকে আটকাতে পারে, যার ফলে মূত্রাশয় সমস্যা, মূত্রনালীর সংক্রমণ বা কিডনির সমস্যা হতে পারে।

প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণঃ

বেনাইন প্রোস্ট্যাটিক হাইপারপ্লাসিয়া (BPH) এর লক্ষণগুলি প্রথমে খুব হালকা হয়, কিন্তু যদি চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি আরও গুরুতর হতে পারে। প্রস্টেট রোগের লক্ষণ গুলির মধ্যে রয়েছেঃ
  • প্রস্রাব করার সময় জ্বালা এবং ব্যথা
  • প্রস্রাবে রক্তের উপস্থিতি।
  • ঘন ঘন মূত্রত্যাগ।
  • প্রস্রাব করার প্রবল বেগ।
  • রাতে প্রস্রাব করার জন্য ঘন ঘন উঠা।
  • প্রস্রাব শুরু করতে অসুবিধা।
  • প্রস্রাব ফুটা ফুটা।
  • প্রস্রাব ধরে রাখতে অক্ষমতা।
  • প্রস্রাব প্রবাহের শেষে ড্রিবলিং।
  • দুর্বল বা ধীর প্রস্রাব প্রবাহ।
যদি একজন ব্যক্তি এই উপসর্গগুলির মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে তাদের অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। প্রোস্টেট বড় হওয়ার চিকিত্সা করা যেতে পারে। সময়মতো চিকিৎসা গ্রহণ করা BPH এর কারণে উদ্ভূত জটিলতা প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।

প্রোস্টেট গ্রন্থি বড় হওয়ার কারণঃ

একটি বর্ধিত প্রস্টেটের সাথে যুক্ত ঝুঁকির কারণগুলি অন্তর্ভুক্ত করতে পারে:
  • ৫০ বছরের বেশি বয়স
  • প্রস্টেট বৃদ্ধির পারিবারিক ইতিহাস
  • ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগ
  • জীবনধারা এবং স্থূলতা, ইত্যাদি

প্রোস্টেট বৃদ্ধি পরীক্ষা

একটি বড় হওয়া প্রোস্টেট (benign prostatic hyperplasia) নির্ণয় করার জন্য, সাধারণত একটি শারীরিক পরীক্ষা করা হয় এবং রোগীর চিকিৎসা ইতিহাস সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়। রেকটাল পরীক্ষা শারীরিক পরীক্ষার অধীনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই পরীক্ষাটি ডাক্তারকে প্রোস্টেটের আকার এবং আকৃতি অনুমান করতে দেয়। প্রস্টেট গ্রন্থি পরীক্ষা করার জন্য ডাক্তার নিম্নলিখিত পরীক্ষাগুলি সুপারিশ করতে পারেন:

১। ইউরিনালাইসিস - এই পরীক্ষার সাহায্যে রোগীর প্রস্রাবের নমুনায় রক্ত এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের উপস্থিতি পরীক্ষা করা হয়।

২। প্রোস্ট্যাটিক বায়োপসি - এই পরীক্ষার অধীনে, আল্ট্রাসাউন্ড নির্দেশিত সূঁচগুলি প্রোস্টেট টিস্যুর নমুনা পেতে ব্যবহার করা হয়। প্রোস্টেট টিস্যু পরীক্ষা করা একজন ডাক্তারকে প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং অন্যান্য সমস্যা নির্ণয় করতে সাহায্য করতে পারে।

৩। ইউরোডাইনামিক পরীক্ষা - এই পরীক্ষার সময়, মূত্রাশয়ের মধ্যে একটি ক্যাথেটারের মাধ্যমে তরল ভর্তি করা হয় এবং মূত্রাশয়ের চাপ পরিমাপ করা হয় এবং মূত্রাশয়ের পেশীগুলি কতটা ভাল কাজ করছে তা নির্ধারণ করা যায়।

৪। Prostate specific antigen test - এটি একটি রক্ত পরীক্ষা যা রক্তের নমুনায় প্রোস্টেট-নির্দিষ্ট অ্যান্টিজেন (PSA) এর মাত্রা পরিমাপ করে। একটি বর্ধিত প্রোস্টেটের ক্ষেত্রে, পিএসএর মাত্রা বৃদ্ধি পায়। সংক্রমণ, সার্জারি বা প্রোস্টেট ক্যান্সারের কারণেও PSA মাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

৫। Post void residual - এই পরীক্ষাটি প্রস্রাবের পরে মূত্রাশয়ে অবশিষ্ট প্রস্রাবের পরিমাণ পরিমাপ করে।

৬। সিস্টোস্কোপি - এই পরীক্ষায়, একটি আলোকিত, নমনীয় যন্ত্র (সিস্টোস্কোপ) রোগীর মূত্রনালীতে ঢোকানো হয়, এই যন্ত্রের সাহায্যে ডাক্তার মূত্রনালী এবং মূত্রাশয় পর্যবেক্ষণ করতে পারেন।

৭। ভডিজিটাল রেকটাল পরীক্ষা - এই পরীক্ষায় ডাক্তার মলদ্বারে একটি আঙুল প্রবেশ করান যাতে একটি বর্ধিত প্রস্টেট পরীক্ষা করা হয়।

৮। ইন্ট্রাভেনাস পাইলোগ্রাফি বা ইউরোগ্রাফি - এই পরীক্ষার সময় একটি রঞ্জক শরীরে ইনজেকশন দেওয়ার পরে সিটি স্ক্যান বা এক্স-রে পরীক্ষা করা হয়। এই পরীক্ষায়, পুরো মূত্রতন্ত্রের ছবি প্রাপ্ত এবং পর্যবেক্ষণ করা হয়।

প্রোস্টেট বৃদ্ধির ঘরোয়া চিকিৎসাঃ

প্রোস্টেট বড় হওয়ার ঘরোয়া চিকিৎসায়, জীবনধারা পরিবর্তন করে এবং ভাল অভ্যাস গ্রহণের মাধ্যমে উপশম করা যেতে পারে। ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে নিম্নলিখিতগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে:
  • ওভার-দ্য-কাউন্টার ডিকনজেস্ট্যান্ট বা অ্যান্টিহিস্টামিন ওষুধ এড়িয়ে চলুন, যা মূত্রাশয় খালি হওয়াকে বাধা দিতে পারে।
  • অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইনযুক্ত পদার্থ এড়িয়ে চলুন, বিশেষ করে রাতের খাবারের পরে।
  • চাপযুক্ত পরিস্থিতি থেকে দূরে থাকুন, মানসিক চাপ ও নার্ভাসনেসের কারণে প্রস্রাবের ফ্রিকোয়েন্সি অর্থাৎ ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যা বাড়তে পারে।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন, ব্যায়াম উপসর্গ কমাতে সাহায্য করে।
  • পেলভিক মাসেল শক্তিশালী করার জন্য কেগেল ব্যায়াম করুন।
  • পরিবেশ উষ্ণ রাখুন, ঠান্ডা প্রস্টেট বৃদ্ধির লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে।
  • অনেকক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখবেন না।
  • স্থূলতা প্রোস্টেট বৃদ্ধির ঝুঁকি বাড়াতে পারে, তাই স্থূলতা এড়াতে স্বাস্থ্যকর খাবার খান।

আশ করি, প্রোস্টেট বড় হওয়ার লক্ষণ, কারন, ঘরোয়া চিকিৎসা (Prostate enlargement) পোস্ট হতে প্রোস্টেট বৃদ্ধিরি ঘরোয়া চিকিৎসা সর্ম্পকে জানতে পেরেছেন।

শেয়ার করুন:

No Comment
Add Comment

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url