পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়
পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়
পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। period er betha komanor upay। মাসিকের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া পদ্ধতি। আপনি কি প্রতি মাসে আপনার পিরিয়ডের ব্যথার সম্মুখীন হন? যদি তাই হয়, তাহলে এর জন্য কোনো ওষুধ না খেয়ে আপনি ঘরোয়া পদ্ধতি ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

নারীদের প্রতি মাসে ঋতুস্রাব হওয়া একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটিকে সচরাচর মাসিক বা পিরিয়ড বলা হয়। প্রতি মাসে ৫-৭ দিন এই পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় মহিলাদের। এটি কিছু মহিলাদের জন্য স্বাভাবিক, তবে বেশিরভাগ মহিলাদের জন্য পিরিয়ড খুব বেদনাদায়ক। এতে তাদের শুধু ব্যথাই হয় না, ক্র্যাম্পের সমস্যাও তাদের যেতে হয়। আমেরিকান একাডেমি অফ ফ্যামিলির বিশেষজ্ঞদের মতে, পিরিয়ডের ব্যথা প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন মহিলাকে প্রভাবিত করে।

আজকের পোস্টে, আমরা পিরিয়ডের ব্যথা থেকে মুক্তির ঘরোয়া কার্যকর উপায় এবং পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর খাবার তালিকা দিয়েছি। আপনি পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় অবলম্বন করতে পারেন। তবে তার আগে পিরিয়ড কি এবং পিরিয়ডের ব্যথা কেন হয়, Period er betha komanor upay জানা খুবই জরুরি।


পিরিয়ড কি?

ঋতুস্রাব বা মাসিক হল এমন একটি সময় যেখানে জরায়ুর ভিতর থেকে যোনিপথে রক্ত ​​এবং মিউকাস টিস্যু নির্গত হয়। সেই সময়কালকে পিরিয়ডও বলা হয়। মাসিক চক্রের সময় শরীরে প্রাকৃতিক প্রক্রিয়াগুলি ঘটে, এটি হরমোনের প্রভাবে সৃষ্টি হয়। এই হরমোনগুলি আপনার মেজাজ এবং শক্তির স্তরকে প্রভাবিত করে। পিরিয়ড চলাকালীন পেটব্যথা, কোমর ব্যথা, পিঠব্যথা ও বমি বমি ভাব সৃষ্টি হতে পারে। এবার জেনে নিন পিরিয়ড ব্যথার কারণ সম্পর্কেও।

পিরিয়ডের ব্যথা হওয়ার কারণঃ

মাসিকের সময় ব্যথা বা ক্র্যাম্পিং হয় যখন জরায়ুর পেশীগুলি আস্তরণে সংকুচিত হয়। যখন জরায়ু সংকুচিত হয়, তখন এটি রক্তনালীতে চাপ সৃষ্টি করতে পারে এবং অক্সিজেনের সরবরাহ কমিয়ে দেয়, যার ফলে ব্যথা এবং ক্র্যাম্পিং হয়। তবে আপনি যদি এর লক্ষণ গুলি সম্পর্কে সচেতন হন তবে আপনি পিরিয়ড ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এবার জেনে নিন, পিরিয়ডের লক্ষণ গুলি সম্পর্কেও।

পিরিয়ড হওয়ার লক্ষণ । মাসিক হওয়ার লক্ষণ সমূহঃ

পিরিয়ড হওয়ার আগে মেয়েরা কিছু লক্ষন অনুভব করেন। এটি Premenstrual Syndrome (PMS) নামে পরিচিত। এর মধ্যে মেজাজ, আচরণ এবং শারীরিক সমস্যাগুলির পরিবর্তন রয়েছে এবং মাসিকের দশ দিন আগে পর্যন্ত হতে পারে। এখানে আমরা আপনাকে এর কিছু লক্ষণ সম্পর্কে বলছি।

পিরিয়ড হওয়ার শারীরিক লক্ষণ-
  • পেটব্যথা।
  • পেট ফুলে যাওয়া।
  • পিঠব্যথা।
  • মাথাব্যথা।
  • হাত ও পায়ে ফোলা।
  • বমি বমি ভাব এবং ওজন বৃদ্ধি।
  • জয়েন্ট বা পিঠে ব্যথা।
পিরিয়ডের আচরণগত পরিবর্তন-
  • বিরক্তি ও মন খারাপ থাকা।
  • মেজাজ খারাপ থাকা।
  • কোনকিছু ভুলে যাওয়া।
  • একাকী বোধ করা।
  • সেক্স করার ইচ্ছা কমে যায়।
  • ক্ষুধা বৃদ্ধি অনুভব করা।
  • নিদ্রাহীনতা, ক্লান্ত বোধ হওয়া।
এবার আসুন জেনে নিই পিরিয়ডের সময় পেটে ব্যাথা হলে করণীয। পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে কি উপকারী জানতে পোড়ু পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

মাসিক বা পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

পিরিয়ডের ব্যথা দূর করার ঘরোয়া উপায় গুলো জানা থাকলে ঋতুস্রাব বা মাসিকের ব্যথা ঘরে থাকা জিনিসগুলির সাহায্যে সহজেই সারাতে পারবেন। পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে আমরা আপনাকে এমন ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি, যার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

১। মাসিকের ব্যথা কমাতে গরম পানি

পিরিয়ডের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে এটি একটি খুব সহজ এবং সহজ ঘরোয়া প্রতিকার। পিরিয়ডের ব্যথা অসহ্য। এ জন্য পেটের নিচের অংশে তাপ দিলে জরায়ুর সংকোচনশীল পেশীগুলো শিথিল হয়ে যায়। আপনি চাইলে গরম পানির বোতল বা গরম পানির ব্যাগ থেকেও তাপ দিতে পারেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, গরম পানি দিয়ে গোসলও ব্যথা উপশম করে এবং আপনাকে আরও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে।

২। মেথি বীজ মাসিকের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়

যদিও মেথি বীজ ওজন কমাতে, লিভার, কিডনি এবং মেটাবলিজমের জন্য ভালো, মেথির বীজ পিরিয়ডের সময় ব্যথা থেকে মুক্তি পেতেও একটি ভালো ঘরোয়া প্রতিকার। পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে মেথি বীজের সাহায্যে এক কাপ মেথি বীজ রাতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ছেঁকে নিয়ে এর পানি পান করুন। এতে করে পিরিয়ডের ব্যথা উপশম হবে।

৩। পিরিয়ডের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে দারুচিনি

দারুচিনিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-স্পাসমোডিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্র্যাম্প এবং ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করে। তাই পিরিয়ডের সময় খাবারে দারুচিনি ব্যবহার করলে দ্রুত ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

৪। পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় গাজরের রস

গাজরের রস আপনার পিরিয়ডের ব্যথা অনেকাংশে কমাতে সহায়ক। বিশেষ করে যেসব মেয়েদের রক্তস্বল্পতা আছে, তাদের পিরিয়ডের সময় অনেক ব্যথা হয়, তাহলে তাদের সারা মাস এক গ্লাস গাজরের রস পান করা উচিত।

৫। মাসিক ব্যথার সারানোর ঘরোয়া উপায় পেঁপে

পিরিয়ডের সময় ব্যথা কমাতে পেঁপে খেতে পারেন। এটি আপনার হজম প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করতে কাজ করে। এতে ব্যথা যেমন কমবে তেমনি খিঁচুনি থেকেও মুক্তি মিলবে। মনে রাখবেন যে আপনাকে এই প্রতিকারটি পিরিয়ডের তারিখের পাঁচ দিন আগে শুরু করতে হবে।

৬। ঋতুস্রাবের ব্যথা কমানোর জন্য জিরা

পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর সহজ ঘরোয়া প্রতিকার হল জিরা। আপনি জিরা বীজের সাহায্যে ভেষজ চা তৈরি করতে পারেন। জিরাতে উপস্থিত অ্যান্টি-স্পাসমোডিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলি মাসিকের ক্র্যাম্প এবং ব্যথা উপশম করতে খুব উপকারী।

৭। পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে তুলসী

এটি প্রাকৃতিক পেইন কিলার এবং অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করলে পিরিয়ডের ব্যথা একেবারেই চলে যাবে। পিরিয়ডের সময় তুলসী চা বা পানিতে ফুটিয়ে পান করুন। এটি পিরিয়ডের সময় পেট ব্যথা উপশম দেবে।

৮। পিরিয়ডের পেট ব্যথা কমাতে হলুদ

পিরিয়ডের ব্যথা থেকে দ্রুত মুক্তি পেতে হলুদ অন্যতম সেরা প্রাকৃতিক প্রতিকার। এটিতে প্রদাহ বিরোধী এবং নিরাময় বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ব্যথা কমাতে খুবই সহায়ক। রাতে ঘুমানোর আগে গরম বাদাম দুধে এক চিমটি হলুদ ও এক টুকরো জায়ফল মিশিয়ে খেলে ভালো ঘুম হয় এবং ব্যথা উপশম হয়।

৯। পিরিয়ড ব্যথার ঘরোয়া 

পিরিয়ডের সময় পেটের ফোলাভাব কমায় কলা। এতে ভিটামিন বি৬, ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাসিয়াম রয়েছে। তাই পিরিয়ডের সময় কলা খেলে ব্যথার উপশম পাওয়া যায়।

১০। মাসিকের ব্যথা কমাতে ব্যায়াম করুন

পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে ব্যায়াম করা সবচেয়ে ভালো ঘরোয়া উপায়। এই সময় ব্যায়াম করলে পেলভিক মাসেলে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায় এবং প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিসকে প্রতিরোধ করতে এন্ডোরফিন নিঃসৃত হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, ঋতুস্রাবের ব্যথার সময় প্রাণায়াম ও শ্বাস-প্রশ্বাসের মতো যোগাসনও করা যেতে পারে। এই দুটিই ব্যথা কমায় এবং আপনাকে আরাম বোধ করে। মনে রাখবেন যে ব্যায়াম আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য, তবে এটি বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ যদি আপনি একটি বেদনাদায়ক অবস্থায় থাকেন।

পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর উপায় নিয়ে কিছু টিপসঃ

পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর জন্য আপনি ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করতে পারেন, তবে এখানে আমাদের দেওয়া কিছু পরামর্শ গ্রহণ করা ঘরোয়া প্রতিকার করার মতোই গুরুত্বপূর্ণ।
  • পিরিয়ডের ব্যথায় টক জিনিস খাবেন না।
  • জাঙ্ক ফুড, তৈলাক্ত এবং ভাজা খাবার এড়িয়ে চলুন।
  • ঠান্ডা জিনিস খাবেন না। এ ছাড়া ভাত, দই-এর মতো ঠান্ডা খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন। এই সব জিনিস পিরিয়ডের ব্যথা বাড়ায়।
  • পিরিয়ডের সময় কফি পান করবেন না বরং পিরিয়ডের সময় বেশি করে পানি পান করুন।
  • খাদ্যতালিকায় ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন।
  • মাসিকের ব্যথা কমাতে ভিটামিন ডি নিন।
  • পিরিয়ডের সময় ব্যথা হলে খুব বেশি ঠান্ডা পানি পান করবেন না, খুব ঠান্ডা ঘরে বসবেন না। এই শীতলতা ব্যথা বাড়ার জন্য দায়ী।
পিরিয়ড বা মাসিক নিয়ে কিছু প্রশ্নঃ

প্রশ্ন ১ঃ পিরিয়ড কতদিন স্থায়ী হয়?

উত্তরঃ সাধারণত মাসিক চক্র পাঁচ দিন স্থায়ী হয় এবং মহিলাদের গড়ে তিন থেকে পাঁচ দিন রক্তপাত হয়। কিছু মহিলাদের জন্য, এটি সাত দিন পর্যন্ত যেতে পারে। সাত দিনের জন্য রক্তপাত সম্পূর্ণ স্বাভাবিক, এবং চিন্তার কিছু নেই। যদি আপনার রক্তপাত ১৫ দিন বন্ধ না হয় বা আপনার মাসিক মাসে তিনবার আসে, তাহলে আপনাকে একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করতে হবে। এটি সাধারণত একজন মহিলার শরীরের হরমোনের পরিবর্তনের কারণে হয়।

প্রশ্ন ২ঃ মাসিকের সময় সাধারণ স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থা কি কি?

আপনার পিরিয়ডের সময় স্বাস্থ্যবিধি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই দিনগুলিতে যে মৌলিক বিষয়গুলি অনুসরণ করতে হবে তা হল - প্রতিদিন গোসল করা এবং যোনি পরিষ্কারের জন্য সঠিক পণ্য ব্যবহার করা। জায়গাটি সঠিকভাবে পরিষ্কার করতে হালকা সাবান বা অন্তরঙ্গ ধোয়ার সাথে গরম জল ব্যবহার করুন। সংক্রমণ বা পিরিয়ড ফুসকুড়ি এড়াতে প্রতি তিন থেকে চার ঘণ্টা অন্তর আপনার স্যানিটারি ন্যাপকিন পরিবর্তন করুন।

আরও পড়ুন - 
এই পাতায়, আমরা আপনাকে পিরিয়ডের ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায় গুলি বলেছি, যা খুবই কার্যকর এবং উপকারী। তবে গুরুতর ক্ষেত্রে চিকিৎসা করার সর্বোত্তম উপায় হল আপনার মাসিকের ব্যথা একজন ডাক্তার দ্বারা নির্ণয় করা।