জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় এবং জ্বর হলে করণীয়

আসসালামু আলাইকুম, জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় এবং জ্বর হলে করণীয় পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। ঠান্ডা জ্বরের ঘরোয়া চিকিৎসা জানা থাকলে আপনার বা আপনার সন্তানের জ্বর হলে, আপনি স্বাভাবিকভাবেই যত দ্রুত সম্ভব তা কমাতে পারবেন।

তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে আমরা টেনশনে পরে গিয়ে তাড়াতাড়ি করে ওষুধ সেবন করে ফেলি। আবার কেউ কেউ একধাপ এগিয়ে ফার্মেসি থেকে এন্টিবায়োটিক ঔষধ কিনে খেয়ে ফেলি। প্রথম কথা হলো, যে কোন রোগে ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতিত ঔষধ খাওয়অ যাবে না। দ্বিতীয়ত, জ্বরে এর ক্ষেত্রে থাকতে হবে আরেকটু বেশি সতর্ক। আপনারা কি জানেন, মানুষেরর শরীর একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রা পর্যন্ত জ্বর শরীর নিজেই প্রতিরোধ করতে সক্ষম।

জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় এবং জ্বর হলে করণীয়
জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় এবং জ্বর হলে করণীয়
জ্বর হলে ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতিত কোনভাবেই এন্টিবায়োটিক ঔষধ সেবন করবেন না। তবে জ্বর বের করা জরুরী হয়ে পরলে প্যারাসিটামল জাতীয় ট্যাবলেট সেবন করা যেতে পারে। এই পোস্টে আমরা জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায়, জ্বরের লক্ষণ, করণীয়, জ্বর হলে কি খাওয়া উচিত নিয়ে বিস্তারিত জানাব।

Jor komanor ghoroa upay

জ্বরের চিকিৎসার আগে জ্বর কেন হয় তা জানা খুবই জরুরি। জ্বর হল একটি আত্মরক্ষামূলক প্রক্রিয়া যা মানবদেহ দ্বারা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ব্যবহৃত হয়। উচ্চ তাপমাত্রা শরীরে শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করে যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা প্রদান করে এবং ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। বিস্তারিত -

জ্বর উঠার কারণঃ

জ্বর শরীরের একটি স্বাভাবিক কাজ। তবে এটি কখনও কখনও গুরুতর পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যেতে পারে। আসুন জেনে কি কি কারনে জ্বর হয়:
  • ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ যেমন স্কারলেট জ্বর বা বাতজ্বর উভয়ই গলা ব্যথার (strep throat) সাথে সম্পর্কিত।
  • দাঁতের ব্যথা অথবা সাইনোসাইটিসের জন্যও জ্বর উঠতে পারে।
  • ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাল সংক্রমণ, ইনফ্লুয়েঞ্জা দ্বারা সৃষ্ট।
  • ওষুধের কারণে।
  • তাপ এক্সপোজার সম্পর্কিত রোগ।
  • এলার্জি থেকে জ্বর হতে পারে।
  • কিশোর বয়সে রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের মতো প্রদাহজনিত রোগ।

জ্বরের লক্ষনঃ

জ্বরের লক্ষণ ও উপসর্গ সুস্পষ্ট বা সূক্ষ্ম (obvious or subtle) হতে পারে। আপনার সন্তান অল্প বয়সে জ্বরের লক্ষণগুলি আরও সূক্ষ্ম হতে পারে।
  • লক্ষণগুলির মধ্যে বিরক্তি, অলসতা, উত্তেজনা বা সম্পূর্ণ প্রশান্তি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।
  • তাপ বা শরীর গরম অনুভূত হতে পারে।
  • খাওয়া-দাওয়া ভালো না হওয়া (not feed normally), বাচ্চাদের কান্না ইত্যাদি।
  • দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস
  • ঘুম বা খাওয়ার অভ্যাসের পরিবর্তন প্রদর্শন করা
শিশুদের ক্ষেত্রে রিপোর্ট করা যেতে পারে জ্বরের যে লক্ষণঃ
  • অন্যদের তুলনায় এক জায়গায় গরম বা ঠান্ডা অনুভব করা
  • শরীর ব্যাথা
  • মাথাব্যথা
  • তন্দ্রা বা ঘুমের অসুবিধা
  • ক্ষুধা কম লাগা।

জ্বরের প্রকারভেদ । জ্বর কয় ধরনেরঃ

জ্বর কতক্ষণ স্থায়ী হয়, জ্বর কোন স্তরের, এর তীব্রতা কি রকম এর মাধ্যমে জ্বর কোন ধরনের তা জানতে পারেন।
  • নিম্ন গ্রেড - ১০০.৫ থেকে ১০২.১ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ৩৮.১ থেকে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
  • মাঝারি - ১০২.২ থেকে ১০৪.০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ৩৯.১ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস
  • উচ্চ - ১০৪.১ থেকে ১০৬.০ °ফা বা ৪০.১ থেকে ৪১.১ °সে।
  • হাইপারপাইরেক্সিয়া - ১০৬.০°F বা ৪১.১°C এর উপরে।
তাপমাত্রা পরিস্থিতি রোগীর কি ধরনের সমস্যা আছে তা ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করতে পারে।

জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় কি । জ্বর থেকে মুক্তি পাওয়ার ঘরোয়া উপায়

জ্বর সারানোর ঘরোয়া উপায় গুলো জানা থাকলে আপনি সহজে জ্বর হতে মুক্তি পেতে পারবেন। তাহলে আসুন জেনে নিই জ্বর কমানোর ঘরোয়া পদ্ধতিগুলো -

১। জ্বর কমাতে গরম পানির গোসল

জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির উষ্ণ বা হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করা উচিত। এটি ভুক্তভোগীকে ত্রাণ প্রদানে সহায়তা করে। গরম পানি ব্যবহার করলে শরীরের তাপমাত্রা ধীরে ধীরে কমতে থাকে।

২। ভিজে মোজা দিয়ে জ্বরের ঘরোয়া উপায়

এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে রোগী সারা রাত বিশ্রাম পায়। হিল ঢেকে রাখতে এক জোড়া সুতির মোজা ঠান্ডা জলে ভেজে নিন এবং মোজা ছেঁকে অতিরিক্ত জল বের করে নিন। এবং জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তিকে পরিধান করুন এবং প্রয়োজনে এই মোজার উপর পশমী মোজাও পরা যেতে পারে। এতে করে জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তি সারারাত আরাম পাবেন। রাতে ঘুমানোর সময় ব্যক্তিকে কম্বল দিয়ে ঢেকে ঘুমাতে হবে।
  • কিছু লোকের এতে সমস্যা হতে পারে, কারণ তারা কয়েক মিনিটের মধ্যে ঠান্ডা অনুভব করতে শুরু করে।
  • এই চিকিৎসা একটি প্রাকৃতিক ঘরোয়া পদ্ধতি। তত্ত্বটি হল যে ঠাণ্ডা পা রক্তসঞ্চালন বাড়ায় এবং ইমিউন সিস্টেমকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে। ফলস্বরূপ, আপনার শরীরের তাপ নষ্ট হয়ে যায় এবং আপনার পরা ভেজা মোজা শুকিয়ে যেতে শুরু করে যা আপনার শরীরকে ঠান্ডা করতে সাহায্য করে। বুকের রক্তজমা (chest congestion) থেকে মুক্তি পেতেও এই চিকিৎসা ব্যবহার করা যেতে পারে।

৩। সরিষার তেল এবং রসুনের মাসাজ

আপনি সরিষার তেল এবং রসুন জ্বরের জন্য কার্যকরীভাবে কাজ করে। এটি সম্পূর্ণ সত্য, এছাড়াও এটি শরীরে ব্যথা কমাতে পারে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ অপসারণে সহায়তা করে। 

৪। মাথায় জলপট্টির মাধ্যমে জ্বর কামানো যাবে

শরীরের অতিরিক্ত তাপমাত্রা সরানোর অন্যতম কার্যকরী উপায় হলো জলপট্টি দেওয়া। তারজন্য একটি পরিষ্কার রুমাল বা তোয়ালে ভাঁজ করে সেটি পরিষ্কার জলে ভিজিয়ে নিবেন। তারপর ভেজা রুমালটি রোগীর কপালের উপর দিয়ে রেখে দিন। একইভাকে ৫ মিনিট পর পর রুমালটি পুনরায় ভিজিয়ে ঠিক সেইভাবে কপালের উপর রেখে দিবেন। এভাবে কয়েকবার জলপট্টি দিলে শরীরের তাপমাত্রা অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন।

৫। জ্বর নিরাময় পেঁয়াজ

আপনি আপনার পূর্বপুরুষদের কাছে পেঁয়াজের ঔষধি গুণের কথা শুনে থাকবেন। পেঁয়াজ শুধু শরীরের তাপমাত্রা কমায় না, জ্বরের সময় শরীরকে ব্যথা থেকেও মুক্তি দেয়। একটি গোটা পেঁয়াজকে পাতলা করে কেটে নিন এবং ২-৪ টুকরো পেঁয়াজ ব্যক্তির পায়ে কিছুক্ষণ ঘষুন। জ্বর কমাতে দিনে অন্তত ৩ বার এই প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করুন।

৬। আদা হল জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায়

আদার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য জ্বরের জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলতে সক্ষম। আদা আপনার শরীরে ঘামের পরিমাণ বাড়ায়, যার কারণে এটি শরীরের তাপ এবং টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে। উষ্ণ জলে ভরা বাথটাবে প্রায় ২ চা চামচ আদা গুঁড়ো যোগ করুন। আদার গুঁড়ো পানিতে ভালোভাবে দ্রবীভূত হতে দিন এবং এই পানি দিয়ে অসুস্থ ব্যক্তিকে গোসল করান। গোসলের পর রোগীর ঘাম হতে পারে, যা তার শরীর থেকে তাপ কমিয়ে দেবে এবং টক্সিন দূর করতেও সাহায্য করবে। আদা হতে পারে জ্বরের কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার। গোসল করার সময় খেয়াল রাখবেন আদার পানি যেন আপনার শিশু বা রোগীর চোখের সংস্পর্শে না আসে।

৭। তুলসী পাতা দিয়ে জ্বরের ঘরোয়া উপায়

অ্যান্টিবায়োটিক গুণসম্পন্ন তুলসী গাছে ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাক ছাড়াও জীবাণুনাশক গুণ রয়েছে। ভাইরাল জ্বর উপশমে তুলসী বহুদিন ধরেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আপনাকে ২০-২৫ টি তুলসী পাতা এবং আধা চা চামচ লবঙ্গ গুঁড়ো ১ লিটার জলে সিদ্ধ করতে হবে। এই মিশ্রণটি অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত সিদ্ধ করুন। তারপর এই ক্বাথ ঠাণ্ডা করুন এবং প্রতি দুই ঘন্টা পরপর পান করুন, এটি আপনার জ্বর কমাতে সাহায্য করবে।

এছাড়াও, আপনি ২০ থেকে ২৫টি তুলসী পাতার সাথে এক চা চামচ আদা মিশিয়ে সিদ্ধ করতে পারেন এবং জল অর্ধেক হয়ে গেলে এতে মধু যোগ করুন এবং কয়েক দিন নিয়মিত খান, এটি জ্বর দূর করতে সাহায্য করবে।

৮। জ্বর সারাতে উপকারী ভাতের মাড়

ভাতের মাড় মূত্রবর্ধক হিসেবে কাজ করে। এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। এটি প্রস্রাবকে উৎসাহিত করে যা শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে। ভাইরাল জ্বর কার্যকরভাবে কমাতে ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে আপনি ভাতের মাড় ব্যবহার করতে পারেন।

৯। মেথি বীজ জ্বরের ঘরোয়া প্রতিকার

মেথির বীজে রয়েছে অ্যালকালয়েড, স্যাপোনিন এবং ডায়োসজেনিন যার রয়েছে প্রচুর ঔষধি গুণ। তারা কার্যকরভাবে ভাইরাল সংক্রমণ কমাতে পারে। রাতে মেথি দানা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। রোগীকে সকালে এই পানি পান করান। এটি রোগীকে সারাদিন শিথিল রাখবে এবং কার্যকরভাবে জ্বর উপশম করতে সাহায্য করবে।

১০। নারকেল তেল জ্বরের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে

নারকেল তেলে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। যা আমাদের জ্বরের ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। আপনি রোগীর জন্য খাবার তৈরি করতে বা তার খাবারে নারকেল তেল যোগ করতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

আরও পড়ুন - 
আশা করি, জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় এবং জ্বর হলে করণীয় পোস্ট হতে জ্বর সারনোর ঘরোয় উপায় সর্ম্পকে জানতে পেরেছেন।