লাল মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতা

লাল মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতাঃ লাল মরিছ মশলা হিসেবে কাজ করে এবং খাবারের স্বাদ বাড়ায়। লাল মরিচকে পুষ্টির পাওয়ার হাউস বলা হয়। খাবারের স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি এর কিছু ঔষধি গুণও রয়েছে। এতে অনেক ধরনের রাসায়নিক যৌগ বিদ্যমান, যা শরীরের বিভিন্ন ব্যাধি দূর করতে সহায়ক। লাল মরিচ তামা, ম্যাগনেসিয়াম, অ্যারিল, ম্যাঙ্গানিজ এবং পটাসিয়ামের মতো খনিজগুলির একটি ভাল উৎস। এছাড়াও, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এবং ভিটামিন কেও এতে পাওয়া যায়। আসুন আমরা benefits of cayenne pepper  সম্পর্কে জানি।

লাল মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতা
লাল মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতা
লাল মরিচ / শুকনা মরিচ (Solanaceae) পরিবারের সদস্য এবং ক্যাপসিকাম নামক একটি উদ্ভিদের ফল। এটি কাঁচা, শুকনো এবং গুঁড়ো আকারে ব্যবহৃত হয়। লাল মরিচ একটি মসলাযুক্ত স্বাদ এবং ভিটামিন সি এবং ক্যারোটিন সমৃদ্ধ। এছাড়া ভিটামিন এ, ভিটামিন বি সহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও এতে আছে।

শুকনা মরিচ বা লাল মরিচের পুষ্টি গুনাগুন -

  • ক্যালোরিঃ ১৮
  • প্রোটিনঃ ০.৮ গ্রাম
  • চর্বিঃ ০.২ গ্রাম
  • কার্বোহাইড্রেটঃ ৩.৯ গ্রাম
  • ফাইবারঃ ০.৭ গ্রাম
  • ভিটামিন সিঃ DV (Daily Value)  এর ৭২%
  • প্রোভিটামিন এঃ ৪৮% (DV)
  • ভিটামিন বি৬ঃ DV এর ১৩%
  • ভিটামিন কেঃ DV এর ৫%

আসুন আমারা জেনে নিই লাল মরিচের উপকারিতা, লাল মরিচের অপকারিতা, শুকনা মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতা।


লাল মরিচের উপকারিতা । শুকনার মরিচের উপকারিতা

সাধারণত লাল মরিচ খাবারের স্বাদ আরও মসলাযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু এটি স্বাস্থ্যের জন্য সমান উপকারী। ওজন কমানো, শরীরে রক্তের অভাব দূর করা সহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা দূর করতে লাল মরিচ খুবই উপকারী। আসুন জেনে নিই লাল মরিচ খাওয়ার উপকারিতা কি কি

১। লাল রক্তকণিকা তৈরিতে লাল মরিচের উপকারিতা

শরীরে আয়রনের অভাবে রক্তশূন্যতা ও ক্লান্তির সমস্যা দেখা দেয়। লাল মরিচে পর্যাপ্ত পরিমাণে কপার এবং আয়রন পাওয়া যায় যা নতুন রক্তকণিকা তৈরিতে সাহায্য করে। লাল মরিচেও ফলিক এসিড পাওয়া যায়, যা শরীরে লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করে এবং রক্তশূন্যতা দূর করে।

২। হৃদরোগ থেকে রক্ষা করার জন্য লাল মরিচের বৈশিষ্ট্য

পটাশিয়াম নামক একটি খনিজ শরীরের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। লাল মরিচে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়, যা এই কাজগুলোতে সহায়ক। ফোলেটের সাথে পর্যাপ্ত পটাসিয়াম গ্রহণ হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। লাল মরিচে রিবোফ্লাভিন এবং নিয়াসিন পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়। নিয়াসিন একজন ব্যক্তির দেহে ভালো কোলেস্টেরল বাড়ায় এবং হৃদরোগ সংক্রান্ত রোগের ঝুঁকি কমায়।

৩। লালমরিচ ব্যথা উপশমে উপকারী

লাল মরিচ অস্টিওআর্থারাইটিস এবং ডায়াবেটিক নিউরোপ্যাথির কারণে সৃষ্ট ব্যথা উপশমে খুব সহায়ক। এটি সংবেদনশীল রিসেপ্টরগুলিকে সংবেদনশীল করে এবং এর প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে প্রদাহ কমাতেও সহায়তা করে। খাবারে লাল মরিচ ব্যবহার Atherosclerosis প্রতিরোধ করে।

৪। অন্ত্রের রোগে লাল মরিচের গুঁড়োর উপকারিতা

অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্যের কারণে লাল মরিচ খাদ্য সংরক্ষণকারী হিসেবে ব্যবহৃত হয়। লাল মরিচে উপস্থিত ক্যাপসাইসিন এইচ পাইলোরি নামক ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে এবং অন্ত্রের প্রদাহের সমস্যা প্রতিরোধ করে। অতএব এটি অন্ত্রের রোগ এড়াতে ব্যবহৃত হয়।

৫। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য লাল মরিচের উপকারিতা

প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ এবং বিটা ক্যারোটিন লাল মরিচে পাওয়া যায়। প্রতিদিন প্রায় দুই চা চামচ লাল মরিচ খেলে প্রায় ৬ শতাংশ ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এ ছাড়া লাল মরিচেও ভিটামিন এ পাওয়া যায় যা মূত্রনালী, অন্ত্রনালী এবং শ্বাসনালীকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। ভিটামিন এ অ্যান্টি ইনফেকশন ভিটামিন নামেও পরিচিত যা সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

৬। স্বাস্থ্যকর চোখের জন্য লাল মরিচের উপকারিতা

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রতিদিন এক চামচ লাল মরিচ খেলে চোখ সুস্থ থাকে। লাল মরিচে ভিটামিন এ পাওয়া যায় যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করে এবং রাতে দৃষ্টিশক্তির সমস্যা দূর করে।

৭। লাল মরিচের বৈশিষ্ট্য ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে লাল মরিচ লিউকেমিয়া এবং ক্যান্সার কোষ দূর করতে সাহায্য করে। হলুদের মতো তরকারি বানানোর সময়, এতে লাল মরিচ ব্যবহার করলে টিউমার এবং ক্যান্সার বাড়তে বাধা দেয়। এ ছাড়া এটি স্তন ক্যান্সারের বৃদ্ধি রোধেও সাহায্য করে।

৮। পেটের আলসার থেকে সুরক্ষায় লাল মরিচের উপকারিতা

পেট ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে লাল মরিচ আসলে খুবই উপকারী। এটি পেটের কোষের আস্তরণকে উদ্দীপিত করে এবং বাফারিং জুস গোপন করে। এর ফলে পেটের আলসার প্রতিরোধ হয়। পেটের আলসারের উপসর্গ কমাতেও এটি খুবই সহায়ক।

৯। ওজন কমাতে লাল মরিচের উপকারিতা

স্থূলতা একটি গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা যা হালকাভাবে নেওয়া উচিত নয়। খাবারে লাল মরিচ বা লাল মরিচের গুঁড়া নিয়মিত ব্যবহার করলে অতিরিক্ত খাওয়ার ইচ্ছা কমে যায় এবং বিপাক বৃদ্ধি পায়। লাল মরিচ খাওয়ার পর গায়ে তাপ আসে, যা শক্তি বৃদ্ধি করে এবং অতিরিক্ত ক্যালরি কমায়। তাই শরীরের ওজন কমাতে লাল মরিচ খুবই দরকারি।

১০। দীর্ঘজীবনের জন্য লাল মরিচ খাওয়ার উপকারিতা

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে 30 বছর বয়সের পরে, দিনে কমপক্ষে 5 থেকে 6 বার খাবারে লাল মরিচ ব্যবহার করলে দীর্ঘ জীবন লাভ হয়। যারা দৈনিক লাল মরিচ খায় না তাদের তুলনায় যারা প্রতিদিন লাল মরিচ খায় তাদের মৃত্যুহার কম পাওয়া যায় কারণ এটি রক্তে IGF-1 নামক অ্যান্টি-এজিং হরমোনের মাত্রা বাড়ায়।

আরও পোস্ট - ছোলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

লাল মরিচ খাওয়ার অপকারিতাঃ

  • লাল মরিচ/লাল মরিচে রয়েছে ক্যাপসাইসিন যা প্রকৃতিতে বেশি মসলাযুক্ত। লাল মরিচ খেলে মুখ, জিহ্বা এবং গলায় জ্বালাপোড়া হতে পারে।
  • লাল মরিচে পাওয়া ক্যাপসাইসিন মৌখিক গহ্বর, গলা এবং পেটের সংস্পর্শে এলে প্রদাহ এবং জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে।
  • যদি হাতে লাল মরিচ থাকে, তাহলে সেই হাত দিয়ে চোখ স্পর্শ করা উচিত নয়, অন্যথায় চোখে জ্বালা হতে পারে এবং চোখ লাল হয়ে যেতে পারে।
  • লাল মরিচে বিদ্যমান আছে আফলাটক্সিন নামক রাসায়নিক যৌগ যা পেট, লিভার এবং কোলন ক্যান্সারের সমস্যা তৈরি করতে পারে।

আশা করি, লাল মরিচের উপকারিতা ও অপকারিতা পোস্ট হতে লাল মরিচ বা শুকনা মরিচ খাওয়ার উপকারিতা এবং লাল মরিচের অপকারিতা সর্ম্পকে সম্পূর্ণ তথ্য পেয়েছেন। 

শেয়ার করুন:

No Comment
Add Comment

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url