ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায় - ‍AjkerFeeds

আস্সালামু আলাইকুম। ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায় পোস্টে আপনাদের স্বাগতম। আপনি কি ডিপ্রেশনে ভোগছেন? তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্য। ডিপ্রেশন একটি মানসিক রোগ যা বিশ্বের একটি বড় অংশকে প্রভাবিত করছে। আজকের পোস্টে ডিপ্রেশনের কারন, ডিপ্রেশনের লক্ষন, ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয়, ডিপ্রেশনের চিকিৎসা এবং ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 
ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়
ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

মানসিক বিষণ্ণতা বা ডিপ্রেশন সেই রোগগুলির মধ্যে একটি যা অন্যান্য অনেক রোগের জন্ম দেয়। আপনি এটিকে হতাশা, স্ট্রেস বা উদ্বেগে নিমজ্জিতও বলতে পারেন। আজকাল বেশির ভাগ মানুষই মানসিক চাপ ও উদ্বেগের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। যার কারনে মানসিক বিভিন্ন রোগ তাদের মধ্যে তৈরি হচ্ছে। তবে এমন অনেক বিষয় রয়েছে যা নিয়মিত মেনে চললে ডিপ্রেন থেকে সহজে মুক্তি পাওয়া যাবে। 

ডিপ্রেশন কি?

ডিপ্রেশন অর্থ হলো বিষন্নতা।

বর্তমান সময়ে ডিপ্রেশন শব্দটা খুব বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। তবে আমরা অনেকেই জানি না ডিপ্রেশন আসলে কি। তাহলে জেনে নেওয়া যাক ডিপ্রেশন কি?

যেকোন ঘটনা আমাদের মন খারাপ করে দেয়। এটি খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। কিন্তু এই মন খারাপের মাত্রা যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়ে যায়, তখন সেটিকে বলে ডিপ্রেশন। Depression এর বাংলা অর্থ হলো বিষণ্ণতা। এর কথাটির সাথে হতাশা, অবসাদ, দুঃখ লেগেই রয়েছে। 

ডিপ্রেশনের কারন এবং কেন হয়:

ডিপ্রেশন বিভিন্ন কারনে হতে পারে। ডিপ্রেশন বা বিষন্নতা যে কারনে হতে পারে তা হলো -
১। জেনেটিক সমস্যার কারনে ডিপ্রেশন হতে পারে। 
২। বায়োলজিক্যাল কারন: প্লেজার নামক হরমোন ডোপামিন, এন্ডোরফিন, অস্কিটোসিন এসবের অভাবেও ডিপ্রেশনের সমস্যা হতে পারে। 
৩। সাইকোলজিক্যাল কারন: আতিরিক্ত স্ট্রেস, নেগেটিভ চিন্তাভাবনা, দুচিন্তা, শারীরিক অপূর্ণতা, মাথায় চুল না থাকা, কালো হওয়া, গোপন শারীরিক সমস্যা, মাদক ইত্যাদির কারনেও ডিপ্রেশন হতে পারে। 

ডিপ্রেশনের লক্ষন:

ডিপ্রেশনের লক্ষনগুলো হলো-
১। মনে অশান্তি, মনে কষ্ট, মন খালি খালি লাগা, অতিরিক্ত মন খারাপ। 
২। অনিদ্রা, ঘুম কম হওয়া অথবা অতিরিক্ত ঘুম হওয়া। 
৩। উৎসাহহীনতা, আত্মবিশ্বাসের অভাব দেখা দেয়।
৪। আনন্দ দায়াক কাজেও আনন্দ না পাওয়া। 
৫। নিজেকে অপরাধী মনে হওয়া। 
৬। আত্মহত্যার চিন্তাভাবনা। 
৭। সরণশক্তি কমে যাওয়া। 
৮। শরীর দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। 
৯। খাওয়া-দাওয়ায় অনিহা। 
১০। যৌন ইচ্ছা কমে যাওয়া। 

ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

ডিপ্রেশনের চিকিৎসা: ডিপ্রেশন থেকে বাঁচার উপায় । এখন আমারা জানবো কিভাবে ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়। 


আপনি যদি ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা থেকে মুক্তি পেতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে এটি সম্পর্কে আপনার প্রিয়জন বা ডাক্তারের সাথে খোলামেলা কথা বলতে হবে। এছাড়াও, আপনার দৈনন্দিন কাজ এবং আপনার রুটিনে কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন আনুন, যদি সম্ভব হয়। নিজেকে অন্য কাজে ব্যস্ত রাখুন যাতে আপনি যে কারণে ডিপ্রেশনে ভুগছেন তা নিয়ে ভাবার সময় না পান। এছাড়াও আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে হবে এবং নিজের জন্যও ভাল সময় কাটাতে হবে।

১। নৈতিকতার মাধ্যমে আনন্দে থাকুন:

নৈতিকতা বজায় রেখে আনন্দে থাকার চেষ্টা করুন। ঘরের এককোণে বসে না থেকে মুক্ত বাতাসে ঘুরতে যান। আপনার মোবাইল বা ল্যাপটপ যদি আপনার ডিপ্রেশনের কারন হয়ে থাকে তবে একটু হলেও এসব চালানো থেকে বিরত থাকুন। প্রেম-ভালোবাসা থেকে দুরে থাকুন। কারন, অনেক মানুষের ডিপ্রেশনের কারন হচ্ছে প্রেমে ব্যার্থতা। সমসময় আনন্দে থাকার চেষ্টা করুন। আপনি যদি বিষণ্ণতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন, তবে তা কাটিয়ে উঠতে আপনার নিয়মিত বিরতিতে এমন ব্যক্তির সাথে কথা বলা উচিত, যার সাথে আপনি কথা বলতে পছন্দ করেন। মনে ভিতর কোনকিছু চেপে রাখবেন না।

২। প্রতিদিন ব্যায়াম বা যোগব্যায়াম করুন

আপনি কি জানেন যে অনেক বৈজ্ঞানিক গবেষণায় এটি প্রমাণিত হয়েছে যে, ব্যায়াম বা যোগব্যায়াম আপনার ডিপ্রেশন কাটিয়ে উঠতে সেরা উপায়। আমরা যখন ব্যায়াম করি তখন আমাদের শরীরে টেস্টোস্টেরন এবং সেরোটোনিনের মতো হরমোন নিঃসৃত হয়। যা আমাদের মনকে স্থির রাখতে কাজ করে। যার ফলে আমাদের বিষণ্ণতা বাড়ায় এমন নেতিবাচক চিন্তা কমে যায়। ব্যায়াম বা যোগব্যায়াম করলে আমরা শুধু মানসিক ও শারীরিকভাবে সুস্থ ও সবল হয়ে উঠি না বরং শরীরে ইতিবাচক শক্তিও সঞ্চারিত হয়।

৩। স্বাস্থ্যকর খাবার খান

যখন একজন মানুষ ডিপ্রেশনের মধ্যে থাকে, তখন সে খাবার খাওয়া কমিয়ে দেয় বা একেবারেই পান করা বন্ধ করে দেয়। তখন খাবার আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। কারণ সুষম ও পুষ্টিকর খাবার খেলে শুধু আপনার স্বাস্থ্য ভালো থাকে না, আপনার মনও থাকে খুশি। এমতাবস্থায় যদি আপনার পছন্দের খাবার পেয়ে যান তাহলে এর থেকে ভালো আর কি হবে। তাই এমন সময়ে আপনার পছন্দের স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার প্রতি পূর্ণ খেয়াল রাখুন।


৪। পর্যাপ্ত ঘুমান ও রাত জাগা থেকে বিরত থাকুন:

আপনি যখন মন খারাপ করেন, তখন ভালো ঘুম আপনার মনের নেতিবাচক চিন্তা কমায় এবং আপনার মনকে আবার সতেজ করে তোলে।
একটি ভাল এবং পূর্ণ রাতের ঘুম আমাদের ইতিবাচক শক্তিতে ভরিয়ে দেয়। গবেষণায় জানা গেছে, প্রতিদিন ৭টি থেকে যারা ৮ ঘন্টা ঘুমিয়েছেন তাদের মধ্যে বিষণ্নতার লক্ষণ কম দেখা গেছে। অতএব, আপনি যদি উদ্বিগ্ন হন বা অতিরিক্ত ব্যস্ততার কারণে পর্যাপ্ত ঘুম না পান তবে আজই এই বদ অভ্যাসটি ত্যাগ করুন কারণ আপনার বিষণ্নতার সমস্যার সমাধান হতে পারে একটি ভালো ঘুম।

৫। নেতিবাচক লোকদের থেকে দূরে থাকুন এবং বন্ধুদের সাথে আনন্দে থাকুন:

আপনার ভালো বন্ধুরা আপনাকে আপনার অনুভূতি এবং চিন্তার উন্নতি করতে সাহায্য করে। এছাড়াও, এই জাতীয় বন্ধুদের সাথে আপনার চিন্তাভাবনা ভাগ করে নেওয়ার মাধ্যমে আপনি প্রয়োজনীয় সহানুভূতিও পান। একই লোকেরা আপনার কথাগুলি মনোযোগ সহকারে শোনে এবং সে সম্পর্কে তাদের চিন্তাভাবনা দেয়, যখন আমরা হতাশার সময় পুরোপুরি একা অনুভব করি। তখন এমন পরিস্থিতিতে কেউ যদি আমাদের মনের কথাগুলি বুঝতে পারে বা ধৈর্য সহকারে শোনে, তবে আমাদের হালকা অনুভব হয়। এই ধরনের ইতিবাচক বন্ধুদের সাথে সংযোগ করার পাশাপাশি, আপনার এমন লোকদের থেকে দূরে থাকা উচিত যারা নিজেরাই বিরক্ত বা নেতিবাচক চিন্তায় পূর্ণ। এই ধরনের মানুষরা সবসময় নিজের পাশাপাশি অন্যদের পেরেশানি, নিরাশ এবং কষ্ট দেওয়ার জন্য কাজ করে।

৬। পার্থনা করুন:

যে যে ধর্মের অনুসারী হয়ে থাকেন যে ধর্ম অনুযায়ী পার্থনা করুন। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলুন। মুসলমান ভাইয়েরা, নামাজ আদায় করুন। যে কোনো বিপদ-আপদ, পেরেশানির সময় নামাজের মাধ্যমেই প্রকৃত প্রশান্তি পাওয়া যায়। কোরআন তেলাওয়াত করতে পারেন। 

৭। পছন্দের কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখুন:

ডিপ্রেশনে থাকলে আমাদের কোন কাজ করতে ইচ্ছা করে না। আমাদের সেই কাজ গুলো করা উচিত যা আমাদের আনন্দ দেয়, কঠিন কাজ হলেও করতে ভাল লাগে।

আগে যেগুলো কাজ ভালো লাগতো কিন্তু এখন করা হয় না, সেসব কাজও আমরা করতে পারি। ঘুরতে যাওয়া, আড্ডা দেওয়া, সিনেমা দেখা, বই পড়া, গান শোনা, রান্না করা বা যে কোন কাজ যা আপনার ভালো লাগে সেসব কিছুই ডিপ্রেশন দূর করতে সাহায্য করে থাকে। 

ডিপ্রেশনের চিকিৎসা: যখন কারো মধ্যে ডিপ্রেশনের সমস্যা দেখা দেয় তাহলে অবশ্যই একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ বা নিউরোলজিষ্ট ডাক্তার দেখাবেন। যদি আমরা আপনাদের ডিপ্রেশনের ঔষধ লিখে দেই তাহলে প্রেসক্রিপশন ছাড়া কখনই কিনে খেতে পারবেন না। 

ডিপ্রেশনের রোগী যদি আত্নহত্যা করার প্রবণাতা থাকে তবে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দিন। হাসপাতালে ততদিন ভর্তি রাখবেন যতদিন না পর্যন্ত তার ভিতর থেকে আত্নহত্যার চিন্তা না যায়। পুষ্টিকর খাবার খাওয়ান। 

আরও কিছু পোস্ট -
আশা করি, ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায় পোস্ট হতে জানতে পরেছেন ডিপ্রেশন কি এবং কেন হয়, ডিপ্রেশনের কারন ও লক্ষন, কিভাবে ডিপ্রেশন থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

শেয়ার করুন:

No Comment
Add Comment

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url